যুক্তরাষ্ট্রে মেয়ের কাছে আর যাওয়া হলো না তাপস পালের

অ’কা’লেই চলে গেলেন ওপার বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল ৷







মঙ্গলবার(১৮ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৩:৩৫ মিনিটে হৃ’দরো’গে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যু’ হয় এই গুনী অভিনেতার। মৃ’ত্যু’কা’লে তাঁর বয়স ছিল ৬১ বছর ।

গত ২৮ জানুয়ারি মুম্বাই গিয়েছিলেন তাপ’স পাল। সেখান থেকে ১ ফেব্রুয়ারি মেয়ে সোহিনী

পালের কাছে, মা’র্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার কথা ছিল তাপস পালের । তবে মেয়ের কাছে আর যাওয়া হল না ৷ বিমানে উঠার আগেই বু’কে ব্যথা অনুভব করেন । পরবর্তিতে তাঁকে মুম্বা’ইয়ের







একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে তাকে ভেন্টি’লেশনে রাখা হয়ে’ছিলো।

চিকিৎসা চলাকালীন সা’মান্য সা’ড়া দিলেও সোমবার থেকে অবস্থার অবনতি শুরু হয়। মঙ্গলবার রাত ৩ টে ৩৫ মিনিটে তিনি শেষ নিশ্বা’স ত্যা’গ করেন।

১৯৫৮ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর হুগলির চন্দ’ননগরে জন্মগ্রহণ করেন তাপস পাল। ছোটবেলা থেকেই অভি’ন’য়ের প্রতি আগ্রহ। কলেজে পড়া’কালীন নজরে পড়েন পরি’চালক তরুণ

মজুম’দারের। মাত্র ২২ বছর বয়সে মুক্তি পায় প্রথম ছবি দাদার কীর্তি। এরপর আর পিছনে

ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক হিট ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের।







উল্লেখযোগ্য ছবি গুলির মধ্যে সাহেব, ‘গুরুদক্ষিণা’, ‘অনুরাগের ছোঁয়া’, ‘পারাবত প্রিয়া’, ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’ । ‘সাহেব’ ছবির জন্য ফিল্ম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ড পান ১৯৮১ সালে

বাংলার পাশাপাশি অভিনয় করেছেন হিন্দি ছবিতেও। মাধুরী দী’ক্ষিতের বিপরীতে অভিনয় করেছেন অ’বোধ ছবিতে। কৃষ্ণনগর লোকসভা থেকে তৃণ’মূলের লোকসভার সাংসদ ছিলেন তিনি।