ভিসির আচরণ প্রথম থেকেই রহস্যজনক মনে হয়েছে: আবরারের মা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের আচরণ প্রথম থেকেই রহস্যজনক মনে হয়েছে বলে জানান ছাত্রলীগের নির্যাতনে নিহত আবরার ফাহাদ পরিবার।

বুয়েট ভিসি বুধবার আবরার ফাহাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে তাদের গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়াতে যান।

কিন্তু গ্রামবাসীর তোপের মুখে আবরারের বাড়িতে না ঢুকে সামনের রাস্তা থেকে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের প্রহরায় তিনি দ্রুত চলে যান।

ফাহাদের মা রোকেয়া বেগম গণমাধ্যমকে জানান, ‘আমি ফাহাদের মা বলছি। ভিসি আমার বাড়ির মেহমান, তার নিরাপত্তার দায়িত্ব আমি নিজেই নিতাম। প্রয়োজনে আমি আল্লাহর নিকট সাহায্য চাইতাম। ভিসিকে অসম্মান করার মতো এ গ্রামে কেউ নেই।’

তিনি বলেন, ‘ভিসির আচরণ প্রথম থেকেই রহস্যজনক মনে হয়েছে। উনি এত কষ্ট করে এসে আমাদের সঙ্গে দেখা না করে চলে গেলেন আর পুলিশ আমার ছেলেকে আঘাত করল আর অন্য বেটার বউয়ের শ্লীলতাহানি করল প্রকাশ্যে এর বিচারের দাবি জানাই।’

গত রবিবার রাতে বুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে ডেকে নিয়ে যায় ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। এরপর তাকে শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

কিন্তু বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম আবরারের লাশ দেখতে যাওয়া তো দূরের কথা ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত তার জানাযার নামাজেও অংশ নেননি তিনি। বুধবার আবরারের পরিবারকে সহমর্মিতা জানাতে কুষ্টিয়া গেলে তিনি তোপের মুখে পড়েন।